মুম্বই ম্যাচে নিজেদের উজাড় করে দিতে তৈরি লাল-হলুদ বাহিনী

হিরো আইএসএল-এ নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মুম্বই সিটি এফসি-র মুখোমুখি হচ্ছে এসসি ইস্টবেঙ্গল। লিগে প্রথম ম্যাচে এটিকে-মোহনবাগানের বিরুদ্ধে হেরে গিয়েছিল লাল-হলুদ বাহিনী। এটিকে-র মতো মুম্বইও ২০১৪ থেকে নিয়মিতভাবে হিরো আইএসএল-এ খেলে আসছে। এই মরসুমে এফসি গোয়া থেকে বেশ কয়েকজন কুশলী ফুটবলারকে তারা দলে নিয়েছে। অনেকের মতে, কাগজে-কলমে মুম্বই দলটি এবারে বেশ শক্তিশালী। লিগের প্রথম কয়েকটা ম্যাচের অবস্থান বিশ্লেষণ করলে এসসি ইস্টবেঙ্গলের কোনও মতে হারা চলবে না। কোচ রবি ফাওলার প্রথম ম্যাচের ভুলত্রুটি গুলো লক্ষ্য করেছেন। ফুটবলাররাও কোচের ওপর পুরোপুরি ভরসা রাখছেন। তাদের মতে, এরকম একজন কোচের সান্নিধ্য পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার, তাই লিগের দ্বিতীয় ম্যাচ থেকেই নিজেদের উজাড় করে দিতে তৈরি এসসি ইস্টবেঙ্গলের ফুটবলাররা।

মুম্বই ম্যাচের আগে অনুশীলনে মগ্ন লাল-হলুদ ফুটবলাররা। নিজস্ব ছবি

দ্বিতীয় ম্যাচের প্রাক্কালে দুই প্রাক্তন ফুটবলার বললেন যে আইএসএল-এর মতো বিদেশী নির্ভর প্রতিযোগিতায় মাত্র ১৫ দিনের প্রস্তুতি যথেষ্ট নয়। এ প্রসঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের সর্বকালের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার সমরেশ চৌধুরী বললেন, 'অন্য দলগুলো যেখানে ২ থেকে ২.৫ মাস পর্যন্ত প্রস্তুতি নেওয়ার সুযোগ পেয়েছে, সেক্ষেত্রে এসসি ইস্টবেঙ্গল মাত্র দু'সপ্তাহের প্রস্তুতি নিয়ে এরকম একটা প্রতিযোগিতায় মাঠে নেমেছে। দেরিতে নামলেও বিদেশী ফুটবলারদের রিক্রুটিংয়ের ক্ষেত্রে লাল-হলুদ কর্তৃপক্ষ বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছে। গত ম্যাচে বিদেশীরা যথেষ্ট ভালো খেলেছিল, কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে ওদের বডি ল্যাঙ্গুয়েজই বলে দিচ্ছিল যে ওদের দমে টান পড়েছিল।' এক্ষেত্রে আবার বলতে হয় যে প্র্যাকটিস করার বিশেষ সময় পায়নি বিদেশীরা। এই সূত্রে সমরেশ চৌধুরী বললেন, 'দেশীয় ফুটবলারদের বাছাইয়ের ক্ষেত্রে সময় পায়নি কর্তৃপক্ষ। যতক্ষণে আমাদের টিম নামল, ততদিনে অন্যান্য দল নিজেদেরকে ভালো করে গুছিয়ে নিয়েছে।'

অনেকেই এটিকে-মোহনবাগানের কাছে হারের জন্য রক্ষণভাগকে দায়ী করেছেন। এ ব্যাপারে প্রাক্তন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ফুটবলার এবং বর্তমানে কোচ অলোক মুখোপাধ্যায় বললেন, 'এটিকে-মোহনবাগান ম্যাচ এখন অতীত। এখন সামনের দিকে তাকাতে হবে। প্রথম ম্যাচে যদি কোথাও ভুল থেকে থাকে, তবে সেটা শুধরে নেওয়ার জায়গা মুম্বই ম্যাচ।' নিজে খেলতেন সাইড ব্যাকে। ফুটবল জীবনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে অলোক বললেন, 'উইং থেকে যখন কোনো ফরওয়ার্ড এগিয়ে আসে, তখন যে কোনো মতে তাকে কর্নার ফ্ল্যাগের দিকে যেতে বাধ্য করতে হবে। সেই সুযোগে স্টপাররা নিজেদের জায়গা নিতে পারবে।' তিঁনি আরও যোগ করেন, 'সবসময় বলের ওপর নজর রাখতে হবে, ফুটবলারদের শরীরের দিকে তাকালে চলবে না। যখন তখন ফাইনাল ট্যাকলে যাওয়া চলবে না।' এ ব্যাপারে অলোক ভাগ করে নিলেন নিজের ফুটবল জীবনে কোচ অরুণ ঘোষের থেকে পাওয়া পরামর্শ। 'স্যার বলতেন যে উইঙ্গারের স্ট্রোক সবসময় একরকম হয় না, তাই বলের দিকে নজর রাখতে হবে।' এর সাথে অলোক আরও যোগ করেন, 'আরেকটা কথা মাথায় রাখতে হবে—বিপক্ষকে পেনিট্রেটিভ অঞ্চলে ঢুকতে দেওয়া যাবে না।'