আজ তিলক ময়দানে এফসি গোয়ার বিপক্ষে কঠিন লড়াই

নতুন বছরের প্রথম ম্যাচে গত রবিবার ওড়িশা এফসি-র বিপক্ষে হিরো আইএসএল-এ নিজেদের প্রথম জয় লাভ করল এসসি ইস্টবেঙ্গল। এই অনুপম উপহারের জন্য অবশ্যই অভিনন্দন প্রাপ্য লাল-হলুদ যোদ্ধাদের।

কেরল ম্যাচে শেষ মুহূর্তে নিশ্চিত জয় হাতছাড়া হয়েছিল। প্রথমদিকে প্রস্তুতির জন্য যথেষ্ট সময় পাওয়া যায়নি। পরবর্তীতে চোট-আঘাত সমস্যা। তবু মাথায় রাখতে হবে যে, সবই খেলার অঙ্গ। সে কথা মাথায় রেখেই খেলতে হবে।

গোয়া ম্যাচের প্রস্তুতিতে মঙ্গলবারের অনুশীলনে লাল-হলুদ ফুটবলাররা। নিজস্ব ছবি

একটানা ব্যর্থতায় দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছিল। এমন একটা অস্বস্তিকর পরিস্থিতি থেকে ওড়িশার বিরুদ্ধে জয় নিঃসন্দেহে খানিকটা স্বস্তি দিচ্ছে। এই জয়ের অভ্যাস এখন তৈরি করতে হবে। হিরো আই-লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচে শ্রীনগরের মাঠে রিয়াল কাশ্মীর-এর বিপক্ষে জিতেছিল লাল-হলুদ বাহিনী। অতিমারীর প্রকোপে মাঝে আর কোনো প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেনি তারা। তারপর গত বছরের শেষের দিকে হিরো আইএসএল-এ অভিষেক হয় তাদের। একটা কথা মেনে নিতে বাধা নেই,তা হল, চূড়ান্ত ব্যর্থতার সময়ও সদস্য-সমর্থকরা অসীম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছিলেন। এই মরশুমের প্রথমদিকে প্রস্তুতির জন্য বিশেষ সময় পাওয়া যায়নি। এ কথা বলে আমরা কোন অজুহাত দাঁড় করাচ্ছি না। একটা কথা ফুটবলারদের মাথায় রাখতেই হবে তা হল, ব্যর্থতার মাঝেও সাফল্যের ইঙ্গিত পাওয়া যায়। কয়েকটা পজিশনে দুর্বলতা ছিল বটে, সেগুলো মেটানোর চেষ্টা চলছে। সামনে দুই কঠিন প্রতিপক্ষ — এফসি গোয়া ও বেঙ্গালুরু এফসি। ওই দুটি ম্যাচে হারা চলবে না। গত তিন ম্যাচে দল হারেনি। এই ধারাটাই বজায় রাখতে হবে।


হিরো আইএসএল একটি ম্যারাথন লিগ। এখানে সাপ-লুডো খেলার মতো প্রচুর উত্থান-পতন ঘটে। ফুটবলারদের এই কথাটি মাথায় রাখতে হবে। ম্যাচ-বাই-ম্যাচ লড়াই করতে হবে।